রোজার গান: সেই অভাগা

রোজার গান: সেই অভাগা

হাজার স্বপ্ন ছিল

হাজার স্বপ্ন ছিল যে আমার জাহেলী জীবনে
অন্তর ছিল অস্থির আর অশান্ত অকারণে।

 

ধন মান আর সম্পদ ঘিরে

স্বপ্নগুলো কিলবিল করে
নিশিদিন যেন রক্ত ঝরে

কালসাপের দংশনে।

 

মরণের পরে যেন নাম থাকে মানুষের অন্তরে
বুদ্ধি আর শ্রমের যত ঘাম সেদিকেই ছুটে মরে
জাহেলী জীবনের এই অন্ধকার
তীর নেই কূল নেই যেন সিমাহীন চরাচর
প্রতিযোগিতায় মত্ত এতে দুনিয়ার ইনসানে।

 

হাজার স্বপ্ন ছিল বড় হবার
হাজার স্বপ্ন ভোগ বিলাসিতার
হাজার স্বপ্ন দুহাতে কুড়াবার সুখ সম্ভার


দুনিয়ার বুকে শুধু একটাই খোয়াব আছে দেখবার
ইসলাম দিল সুখের সে খবর মানুষকে ভালোবাসবার
আল কোরআনের অন্তরে এই যে সত্যের
দিশা পেয়ে বুঝেছি এযে শান্তির অঙ্গিকার
সার্বজনীন সত্য এটাই দুনিয়ার কল্যাণে।


কথা ও সুর: শেখ আবুল কাশেম মিঠুন
 

যত গান যত সুর

আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু
আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু


গানের কথায় ওগো তুমি রবে
গানের সুরেও তুমি রবে
তুমি ছাড়া হবে না লিখা কোন গান
তুমি ছাড়া জমে না সুরেরই টান
যতগান যতসুর আছে তুমিময়
কবুল করো তুমি ওগো দয়াময়  ।


যে গানে থাকে না তোমার কথা 
যে গানে থাকে না প্রেম রাসূলের
স্বদেশের কথা যেই গানে থাকে না
থাকে না যে গানে কথা জীবনের
সেই গান সে সুরের এটুকু সুধা
আমার কণ্ঠে যেনো কভু না রয়  ।


যে গানে থাকেনা মানবতা
আহ্বান থাকেনা দ্বীনের পথে
যে গানে জিহাদের কথা থাকেনা
নিয়ে যায় আযাবের অগ্নিপথে
সেই গান কথনও যেন না হয়
যতগান হবে শুধু ওগো দয়াময় ।


কথা ও সুর মাহমুদ ফয়সাল 

দিকে দিকে ছড়াবে

দিকে দিকে ছড়াবে শান্তির বার্তা
হবে সব অনাচার খর্ব
করবো করবো এই বিশ্বটাকে
শান্তির এক স্বর্গ ।


তবে এসো খুলে দিই মনের দুয়ার
বিজয়ের গান গাই বার বার
স্বপ্ন দেখি সেই মহা সুদিনের
বাজাই সুরের সেই ডংকার
শক্ত হাতে বজ্রপাতে
ভাঙ্গি ঐ বাধার পাহাড়
গর্জে উঠি বার বার... ।

 

লক্ষ প্রাণের দানে আমাদের দেশ
আমাদের স্বাধীনতা
জীবন দেব তবু দেবনাতো মান
মানবো না পরাধীনতা
হারবো না কখনো কোন যুদ্ধে
ধরবো শক্ত হাতিয়ার
গর্জে উঠবো বার বার...।

 

আমরা ছিলাম আমরা আছি
আমরা রবো বিশ্ব জুড়ে
যেখানে থাকি যেভাবে থাকি
উঠবো মোরা পাতাল ফেড়ে

 

সমাজটাকে গড়বো মোরা
ন্যায়ের পন্থা দিয়ে
সত্য পথে লড়বো মোরা
সততার শক্তি নিয়ে
ভয় করিনা ঐ কালো চক্ষু
জাগবো দিয়ে হুংকার
গর্জে উঠবো বার বার...।

 

কথা ও সুর: আশরাফুল ইসলাম

আনতা রাব্বি

আল্লাহ আল্লাহ আল্লাহ আল্লাহ
আনতা রব্বী আনতা খলিক
আনতা রহমান আনতা মালিক
আল্লাহ আল্লাহ


তোমায় ভালো না বেসে সৃষ্টি তোমায় ভালোবেসেছি
তোমার কাছে না এসে ধরণীর কাছে সব এসেছি
তবু বন্ধ করনি তুমি তোমার সুরুজের আলো দান
বন্ধ করনি বায়ু চাাঁদের আলো ছায়া ফুলেরী ঘ্রাণ
তাইতো তুমি আল্লাহ
তাইতো তুমি প্রিয় আল্লাহ
ইয়া আল্লাহু ইয়া আল্লাহ ইয়া রাহমানু ইয়া আল্লাহ
ইয়া রাহিমু ইয়া আল্লাহ ইয়া কারিমু ইয়া আল্লাহ।
ইয়া সাত্তারু ইয়া আল্লাহ......


ক্ষুদ্র পিপিলিকা তাকেও দাও তুমি খাদ্য
অনু পরমানু কেউ হয়না তোমার অবাধ্য
অবাধ্য মানুষই শুধু হয় নেয়ামাত যারা বেশি নিয়েছি
ইয়া আল্লাহু ইয়া আল্লাহ ইয়া রাহমানু ইয়া আল্লাহ
ইয়া রাহিমু ইয়া আল্লাহ ইয়া কারিমু ইয়া আল্লাহ।
ইয়া সাত্তারু ইয়া আল্লাহ......


ক্ষুদ বৃহৎ যত তোমারই হুকুম মেনে চলে
তোমার জিকির করে সুরুচ্ছাস কলকলে
মানুষ শুধুই অবাধ্য নেয়ামাত যারা বেশি ভেসেছি
ইয়া আল্লাহু ইয়া আল্লাহ ইয়া রাহমানু ইয়া আল্লাহ
ইয়া রাহিমু ইয়া আল্লাহ ইয়া কারিমু ইয়া আল্লাহ।
ইয়া সাত্তারু ইয়া আল্লাহ......

 

কথা ও সুর: আবুল আলা মাসুম

মারহাবা ইয়া মারহাবা

ইয়া রাসুল সাল্লেআলা 
মারহাবা ইয়া মারহাবা
ইয়া নাবী কামলিওয়ালা 
মারহাবা ইয়া মারহাবা 
রাহমাতুল্লিল আলামীন তুমি
জানালেন আল্লাহ তালা
মারহাবা ইয়া মারহাবা... 


তুমি যে হাবিবে খোদা
রাসুলে মাকবুল 
দ্বীন দুনিয়ার পথ দেখালে
মদিনার বুলবুল।
মরু সাহারার ধূসর বুকে
তুমি রঙিন গুলে লালা।


অন্ধকারের আলোক শিখা 
রাসুল মোহাম্মাদ 
কুল আলমের বন্ধু তিনি
সবার প্রেমাস্পদ 
সেই ফুলেরী খুশবু নিতে
গেঁথে নে সে ফুলের মালা। 


অমানিশার বুকে হানলে 
হেরার আলোর বান
হানাহানির বিশ্বে গাইলে
ভালোবাসার গান। 
রোজ হাশরের কঠিন দিনে
তুমি যে কাওছার ওয়ালা।

 

কথা ও সুর: তাফাজ্জল হোসাইন খাঁন 

আগের মতো শান্তি

আগের মতো শান্তি তো আর এখন পাওয়া যায় না
মানুষ সব পাল্টে গেছে পাল্টেনি তো জামানা
মানুষ সব পাল্টে গেছে জামানা ঠিকই আছে।

 

চুল গুলো খাটো খাটো শার্ট প্যান্ট আটো সাঁটো
সানগ্লাস চোখে তার যেন কোন জমিদার
বুট জুতা পায়ে দিয়ে কাধে এক ব্যাগ নিয়ে
ঠোঁটে দেয় লিপিষ্টিক হাসে শুধু ফিক্ ফিক্
ওদিকে গেলো দু’চোখ মনে হলো ভদ্রলোক
কাছে গিয়ে দেখি হায় পুরুষ মানুষ না
মশান লইয়া দাড়াইয়া আছে মিছ জরিনা আপা।

 

লম্বা লম্বা আছে চুল কানে দেওয়া আছে দুল
হাতেতে সোনার চুরি চিকন ফিতার ঘড়ি
পাঞ্জাবি গায়ে দিয়ে হাত আছে মোড়ানো
লম্বা ওড়নাটা কাঁধে আছে ঝোলানো
হেঁটে চলে আঁকা বাঁকা যেন কোন নায়িকা
কাছে গিয়া দেখি হায়! মাইয়া মানুষ না
এইডা হল আমগো পাড়ার মিঃ সোহেল রানা।

 

মোটা বই আছে হাতে কলমটা আছে সাথে
সাদা শার্ট গায়ে দিয়ে সু-জোড়া পায়ে দিয়ে
জিন্সের পড়েছে প্যান্ট মনে হয় ষ্টুডেন্ট
পরনে আছে যে বেল্ট গায়ে মাখে দামী সেন্ট
যায় বন্ধুর আড্ডায় ছিনতায় করে রাস্তায়
নেশা করে ফিন্সি গেলে আট মাস থাকে জেলে
অবশেষে মনে হলো এইডা কোন ছাত্র না
এইডা হলো আমগো পাড়ার টোকাই বাবুল কানা।

 

কথা ও সুর: মাসুদ রানা
 

ধন ধান্য পুষ্প ভরা

ধন ধান্য পুষ্প ভরা
                 -- দ্বিজেন্দ্রলাল রায়

ধনধান্য পুষ্প ভরা আমাদের এই বসুন্ধরা
তাহার মাঝে আছে দেশ এক সকল দেশের সেরা
ও সে স্বপ্ন দিয়ে তৈরি সে দেশ স্মৃতি দিয়ে ঘেরা
এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি
ও সে সকল দেশের রাণী সে যে আমার জন্মভূমি
সে যে আমার জন্মভূমি, সে যে আমার জন্মভূমি।।

চন্দ্র সূর্য গ্রহতারা, কোথায় উজল এমন ধারা
কোথায় এমন খেলে তড়িৎ এমন কালো মেঘে
তার পাখির ডাকে ঘুমিয়ে উঠি পাখির ডাকে জেগে।।

এত স্নিগ্ধ নদী কাহার, কোথায় এমন ধুম্র পাহাড়
কোথায় এমন হরিত ক্ষেত্র আকাশ তলে মেশে
এমন ধানের উপর ঢেউ খেলে যায় বাতাস কাহার দেশে ।।

পুষ্পে পুষ্পে ভরা শাখি কুঞ্জে কুঞ্জে গাহে পাখি
গুঞ্জরিয়া আসে অলি পুঞ্জে পুঞ্জে ধেয়ে
তারা ফুলের ওপর ঘুমিয়ে পড়ে ফুলের মধু খেয়ে।।

ভায়ের মায়ের এত স্নেহ কোথায় গেলে পাবে কেহ
ওমা তোমার চরণ দুটি বক্ষে আমার ধরি
আমার এই দেশেতে জন্ম যেন এই দেশেতে মরি।।

মা যে দশ মাস

মা যে দশ মাস দশ দিন গর্ভে ধরিয়া

করেছেন আমাদের ঋণী
গায়ের চামড়া কাটিয়া দিলেও

সেই ঋণ শোধ হবেনা জানি, মা।

কতদিন দেখিনা মায়ের ঐ চাঁদমুখ কষ্টে হৃদয় পুড়ে
পিঠা পুলি বানাইয়া পায়েসও রান্ধিয়া মা প্রতীক্ষা করে
হাজারো বাস্ততা অবসর পাই কোথা
তাইতো হয়না যাওয়া গায়ের বাড়িতে।


চিঠি লিখে ছোটবোন টেলিফোন করে

অসুখটা যাচ্ছে মায়ের বেড়ে
ভীষণ জ্বরের ঘোরে মা কাইন্দা বলে

ভুইলা কি গেছিস মোরে

কতো ছেলে বাড়ি যায় আমার না কাজ ফুরায়

যাবো বলি তবুও বাড়ি যাওয়া রে ।

হঠাৎও একদিন রাত দুপুরে একটা খবর এল
সবকিছুই আছে আগেরই মত,মা হারিয়ে গেল
এখন আর পথ চাইয়া থাকে না কেউ বসিয়া
তাইতো কষ্টে হৃদয় গোমরে মরে
মা গো... মা গো... মা গো... দুঃখিনী মা।

 

কথা সুর ও শিল্পী: আমিরুল মোমেনিন মানিক

ইয়া সাইয়্যেদী

ইয়া সাইয়্যেদী ইশফালানা

ইয়া সাইয়্যেদী ইশফালানা

আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহ্ 

আল্লাহ্ আল্লাহ্ সুবহানাল্লাহ্

আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহু আকবার 

আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহ্

আল্লাহ্ আল্লাহ্ আল্লাহু আকবার ।

 

ইন্নালতিয়া রিহাসসবাহ্

ইয়াওমান ইলাহ্ আরদিল হারাম

বাল্লিগ সালামি রওদতান

ফিহান্নাবিয়ুল মুহতারাম ।

 

বালাগালউলা বিকামালিহি

কাসাফাদ্দুজা বিজামালিহী

হাসনাত জামিউখি সলিহি

সাল্লু আলাইহি ওয়ালিহি।

 

আমিও কি তবো উম্মাত নহে

হিয়া পেরেশান তোমার বিরহে

আনেক সাগর তোমাতে হারায়

অনেক আকাশ দুহাত বাড়ায় ।

 

দিয়েছো কেবল চাওনি কিছু

ভেবেছো সমান উচু কি নিচু

ওগো প্রিয়তম প্রেম দাও কিছু

না হয় তোমার ছাড়বো না পিছু।

 

কথা: মতিউর রহমান মল্লিক

 

আমি কোরানের সুর

আমি কোরানের সুর মাঝে শুনেছি যে নাম
আজানের সুর মাঝেও শুনেছি সে নাম।
ও নাম শুনেছি আমি, আমার হৃদয়
হে রাসুল, নবীজি তোমায়
হে রাসুল, নবীজি তোমায়।

ও নামে এত জাদু, এত মধুময়
ও নাম নিয়েই ফুল সুরভী ছড়ায়,
ও নামের সুর তুলে শুধু আমি চাই
হে রাসুল, নবীজি তোমায়
হে রাসুল, নবীজি তোমায়।

আরশের বুকে লেখা ও মধুর নাম
তামাম মানবকুল জানায় সালাম,
ব্যাথিত মানবতা খুজেঁ ফেরে হায়
হে রাসুল, নবীজি তোমায়
হে রাসুল, নবীজি তোমায়।

আমি কোরানের সুর মাঝে শুনেছি যে নাম
আজানের সুর মাঝেও শুনেছি সে নাম।
ও নাম শুনেছি আমি, আমার হৃদয়
হে রাসুল, নবীজি তোমায়
হে রাসুল, নবীজি তোমায়।

 

কথা ও সূর : আব্দুস সালাম

শিল্পী : নওশাদ মাহফুজ

সে কোন বন্ধু

সে কোন বন্ধু বল বেশী বিশ্বস্ত
কার কাছে মন খুলে দেওয়া যায়
কার কাছে সব কথা বলা যায়
হওয়া যায় বেশী আশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

যে জন কখনো ব্যাথা দিতে জানেনা
যে জন কেবলই মুছে দেয় বেদনা
হৃদয়ের হাহাকার আপন করে নিতে আর
কার বুক এত প্রশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

মহানবী বলে তারে কেউ বা ডাকে
আমি ডাকি প্রিয়তম
সে আমার ধ্যান ভালাবাসা প্রেম
মধুময় মনোহর স্বপ্ন সমর

 

যে জন করুণার অনুপম উপমা
যার মত মরমী/দরদী কোথায় আর মিলেনা
জীবনের আঙ্গিনায় আবাদ করে দিতে আর
কার বুক এত প্রশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

কথা ও সুর: মতিউর রহমান মল্লিক

 

সে কোন বন্ধু

সে কোন বন্ধু বল বেশী বিশ্বস্ত
কার কাছে মন খুলে দেওয়া যায়
কার কাছে সব কথা বলা যায়
হওয়া যায় বেশী আশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

যে জন কখনো ব্যাথা দিতে জানেনা
যে জন কেবলই মুছে দেয় বেদনা
হৃদয়ের হাহাকার আপন করে নিতে আর
কার বুক এত প্রশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

মহানবী বলে তারে কেউ বা ডাকে
আমি ডাকি প্রিয়তম
সে আমার ধ্যান ভালাবাসা প্রেম
মধুময় মনোহর স্বপ্ন সমর

 

যে জন করুণার অনুপম উপমা
যার মত মরমী/দরদী কোথায় আর মিলেনা
জীবনের আঙ্গিনায় আবাদ করে দিতে আর
কার বুক এত প্রশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

কথা ও সুর: মতিউর রহমান মল্লিক

সে কোন বন্ধু

সে কোন বন্ধু বল বেশী বিশ্বস্ত
কার কাছে মন খুলে দেওয়া যায়
কার কাছে সব কথা বলা যায়
হওয়া যায় বেশী আশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

যে জন কখনো ব্যাথা দিতে জানেনা
যে জন কেবলই মুছে দেয় বেদনা
হৃদয়ের হাহাকার আপন করে নিতে আর
কার বুক এত প্রশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

মহানবী বলে তারে কেউ বা ডাকে
আমি ডাকি প্রিয়তম
সে আমার ধ্যান ভালাবাসা প্রেম
মধুময় মনোহর স্বপ্ন সমর

 

যে জন করুণার অনুপম উপমা
যার মত মরমী/দরদী কোথায় আর মিলেনা
জীবনের আঙ্গিনায় আবাদ করে দিতে আর
কার বুক এত প্রশ্বস্ত
তার নাম আহমদ বড় বিশ্বস্ত।

 

কথা ও সুর: মতিউর রহমান মল্লিক

 

সুন্নাত নয় শুধু

সুন্নাত নয় শুধু দাওয়াতের মেহমান 
সুন্নাত নয় শুধু খাওয়া শেষে মধুপান
আরও কিছু সুন্নাত আছে তুমি জান কি?
জানলেও জীবনে কখনো তা মান কি?

সুন্নাত শুধু নয় মজলুম সহায়ক 
সুন্নাত ওহুদে জালিমের প্রতিরোধ
সুন্নাত শুধু নয় নির্জন ধ্যানে যাওয়া
আরও সুন্নাত হল পাথরের আঘাত খাওয়া
মুহাব্বতে তার সুদিনের সাথী তুমি
দুর্দিনেও তার পাশে থাক কি?

সুন্নাত কোরআনের সমাজ বিনির্মাণে
বৈরী সকল পথ মাড়িয়ে চলা
সুন্নাত দাওয়াতে দীনের পাশাপাশি 
ইসলাম রক্ষায় হাতে তলোয়ার তোলা

সুন্নাত শুধু নয় নমনীয় আলাপন 
সুন্নাত প্রয়োজনে হুঙ্কার গর্জন
সুন্নাত শুধু নয় মেষ চরাতে যাওয়া
আরও সুন্নাত হল রাষ্ট্রনায়ক হওয়া
মুহাব্বতে তার খালিদ-ওমর-আলী
আবুবকরের মত পাশে থাক কি??

 

কথা ও সুর: মাহ্ফুজ বিল্লাহ্ শাহী

 

 

পুণ্যভূমি

এ দেশে আযান শুনে সূর্য ওঠে শহর গ্রামে
এ দেশে আযান শুনে সূর্য ডোবে সন্ধ্যা নামে
এ দেশে সকল কাজে সবাই বলে বিসমিল্লাহ
এ দেশে ভালো কিছু দেখে শুনে হাসি মুখে
সবাই বলে- মা শা আল্লাহ
সুবহান আল্লাহ্‌।।
-
এ দেশে পরস্পরে দেখা হলে দেয় সালাম
এ দেশে আম জনতার হৃদয় জুড়ে পাক কালাম
এ দেশে খারাপ শুনে সর্বজনে সর্বক্ষণে
দোয়া পড়ে- ইন্না লিল্লাহ
ইন্না লিল্লাহ।।
-
এ দেশের বাতাস থেকে যায় শোনা যায়
আল্লাহু আকবার
এ দেশের আকাশ থেকে বৃষ্টি ঝরে
নাম নিয়ে আল্লার
এ দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি এক
শ্রেষ্ঠ উপমা
পৃথিবীর অন্য কোথাও নেই তো এমন
শান্তি সুষমা।। 
-
তিতুমীর শাহজালালের শাহপরানের
কদম চুমি
'লা-শরীক' উড়ল নিশান, জাগল নতুন
পুণ্যভূমি।
এ দেশে আনলো সকাল শাহ আমানত শাহমাখদুম
খানজাহান ও শরীয়তুল্লাহ
সুবহান আল্লাহ্‌।।


কথা, সুর ও সঙ্গীত: মাহফুজ বিল্লাহ শাহী

সেরাদের সেরা “থিম সং”

জাতীয় সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা সেরাদের সেরা “থিম সং”।

গান: স্বাপ্নিক নাবিকেরা

কথা: ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দ

সুর: আমিরুল মোমেনীন মানিক

 

 

থিমসং: সেরাদের সেরা

 

স্বাপ্নিক নাবিকেরা বিশ্বাসী পদভারে চলো

সেরাদের সেরা হয়ে বাংলার বুক জুড়ে

বিজয়ের সুরে কথা বলো

 

লাল সবুজের দেশে গান সুর কবিতার টানে

সেরাদের সেরা হয়ে সৃষ্টির উল্লাসে

মুক্তির দিন আনি গানে।

 

বিশ্বাসে- গান সুরে আনবো সকাল

কবিতার উপমাতে স্বপ্নের দিন

নাটকের অভিনয়ে জীবনের গান

আমাদের বুকজুড়ে স্বপ্ন রঙিন

মুক্তির মশাল জ্বেলে

চলো খুঁজি একসাথে জীবনের মানে।

 

একুশের চেতনাকে বক্ষে রাখি

পতাকার রঙে রঙে স্বপ্ন উড়াই

শহীদের খুনরাঙা দেখানো পথে

হাসিমুখে একমাথে জীবন বিলাই

বিজয়ের নিশান হাতে

মঞ্জিলে যাই চলো হৃদয়ের টানে।

ছয়টি ঋতুর খেলা

গান: ছয়টি ঋতুর খেলা
কথা: মতিউর রহমান মল্লিক
সুরঃ মাহফুজ বিল্লাহ শাহী

 

কোন দেশেতে পাবিরে তুই

ছয়টি ঋতুর খেলা
ও ও ও ও ও ও- - - - - হো হো হো
গ্রীষ্ম বর্ষা শরৎ শেষে
হেমন্ত শীত বসন্তেরই মেলা
সে আমার এই বাংলাদেশই
সজিব সুজলা শষ্য সুফলা
মন মাতানো প্রাণ জুড়ানো
দেশ চির শ্যামলা রে ॥

 

বুকের ভেতর লুকিয়ে রাখে
লতিয়ে থাকা হাজার নিবিড় নদী
জারি সারি ভাটিয়ালীর
সেই নদীরা বয়রে নিরবধী
মাঝ দরিয়ায় হাল ঘুরিয়ে
মন মাঝিরা পাল উড়িয়ে
দিক হতে দিক দিগন্তে যায়
ভাসিয়ে সুখের ভেলা ॥

 

সকাল নামে গাছের পাতায়
শিশির কনা ধুয়ে ধুয়ে ঐ
ছড়িয়ে পড়ে আলোর পাখি
ঘর বাড়ি মাঠ হৃদয় ছুয়ে ঐ
বয়রে হাওয়া নীড় নাচিয়ে
ফুল ফসলের ক্ষেত মাতিয়ে
সুনীল আকাশ গান গেয়ে যায়
রাঙিয়ে গোধুল বেলা ॥
 
বাঁশ বকুলের এ দেশ আমার
তাল তমালের এ দেশ আমার ওগো
জগত সেরা এ দেশ আমার
একটি মহান সবুজ খামার ওগো
তেপান্তরের মাঠ পেরিয়ে
হিজলতলীর ঘাট পেরিয়ে
ঝড়ের আকাশ নেয় উড়িয়ে
খড়ের বিচঞ্চলা ॥

গানের কথায় ওগো তুমি রবে

 

আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু

আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু আল্লাহু

 

গানের কথায় ওগো তুমি রবে

গানের সুরেও তুমি রবে

তুমি ছাড়া হবে না লিখা কোন গান

তুমি ছাড়া জমে না সুরেরই টান

যতগান যতসুর আছে তুমিময়

কবুল করো তুমি ওগো দয়াময় ।

 

যে গানে থাকে না তোমার কথা

যে গানে থাকে না প্রেম রাসূলের

স্বদেশের কথা যেই গানে থাকে না

থাকে না যে গানে কথা জীবনের

সেই গান সে সুরের এটুকু সুধা

আমার কণ্ঠে যেনো কভু না রয় ।

 

যে গানে থাকেনা মানবতা

আহ্বান থাকেনা দ্বীনের পথে

যে গানে জিহাদের কথা থাকেনা

নিয়ে যায় আযাবের অগ্নিপথে

সেই গান কথনও যেন না হয়

যতগান হবে শুধু ওগো দয়াময় ।

 

 

কথা ও সুর মাহমুদ ফয়সাল

যে মা আমায় ছোট্ট থেকে - মফিজুল ইসলাম ইমন - সেরা শিশু কণ্ঠ

যে মা আমায় ছোট্ট থেকে

কথা ও সুর: 

শিল্পী: মফিজুল ইসলাম ইমন 

সেরা শিশু কণ্ঠ-২০১৫

 

 

যে মা আমায় ছোট্ট থেকে
মায়ার জালে বন্দি রেখে
করেছে পালন
হে প্রভু তুমি ও তারে
তোমার আরশ ছায়া নীড়ে
করিও লালন
মাকে করিও লালন।

 

যে মা সদা আমার পাশে
সুখে দুঃখে থাকতো বসে
সে মা আজি আমায় ছেড়ে
চলে গেছে তোমার কাছে

হে প্রভু তুলেছি হাত
তুমি তারে দাওগো নাযাত

করে নাও আপন।

হে প্রভু তুমি ও তারে...

 

আমার দুঃখে কাঁদতো যে মা মলিন করে মুখ
দু হাত তুলে তোমার কাছে চাইতো আমার সুখ।

 

যে মা ছিল সবচে আপন
সে ছাড়া আজ শুন‍্য ভূবন
আসবে না মা ফিরে কভু
কেঁদে যতই ভাসাই নয়ন

হে প্রভু তুলেছি  হাত
তুমি তারে দাওগো নাযাত
করে নাও আপন।

হে প্রভু তুমি ও তারে...

মিথ্যাবাদী - নীল প্রজাপতি

 

কথা: মতিউর রহমান মল্লিক
সুর: মশিউর রহমান

 

মিথ্যাবাদীর বন্ধু হয়ো না

হয়ো না সঙ্গী তার

তাহলে হায়রে তোমার জীবন

হয়ে যাবে ছারখার ------

 

সদাই মিথ্যা বলতে পারে যে

সব অন্যায় করতে পারে সে

ধীরে ধীরে তার শেষ হয়ে যায় লেশটুকু লজ্জার

 

বাঘে খেয়ে গেলে বাঘে খেয়ে গেলো বলতো সে এক রাখাল

চিৎকার শুনে আসতো চাষিরা মিথ্যায় হতো নাকাল

 

তারপর বাঘ আসলো যেদিন

কেউতো এগিয়ে এলো না সেদিন

বাঘ খেল তারে শাস্তি পেল সে বানিয়ে মিথ্যা বলার

 

 সকল পাপের উৎস মিথ্যা

সব খারাপের মূল

মিথ্যবাদীরা নিশ্চিতভাবে

হারায় যে দুই কূল -----

 

একটি মিথ্যা বললে তখন

হাজার বলার হয় প্রয়োজন

এইভাবে শেষে শুরু হয়ে যায় মিথ্যার কারবার